৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ| ১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ| ৯ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি| রাত ২:১৯| বর্ষাকাল|
Title :
নাগরপুর উপজেলা কিন্ডারগার্টেন সমিতির উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বৃত্তিপ্রাপ্ত কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ভূরুঙ্গামারীতে অসহায় বন্যার্থদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করলেন জহির উদ্দিন ব্যাপারী ঠাকুরগাঁওয়ে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রীর অনুষ্ঠান বর্জন খুলনা রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার নির্বাচিত হ‌লেন জনাব মুহাম্মদ মতিউর রহমান সিদ্দিকী, পুলিশ সুপার,সাতক্ষীরা নাগরপুর উপজেলা আ’লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতির মৃত্যুতে জননেতা তারেক শামস খান হিমু’র শোক কালিহাতীতে বন্যা কবলিত এলাকায় ত্রাণ বিতরণ রামগড় পাতাছড়ার গণহত্যার ৩৮ বছরে দোয়া ও মোনাজাত এ নিয়ম ভাঙতে হবে বাংলাদেশ পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর ময়মনসিংহ আগামীকাল শুভ উদ্বোধন পূবাইলে ইজিবাইক চোর চক্রের নারীসদস্যসহ চারজন গ্রেফতার

মহান বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক মোঃ রাসেল হুসাইন।

মোঃ রাসেল হুসাইন নড়াইল
  • Update Time : সোমবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০২১,
  • 65 Time View

এক শুভেচ্ছা বার্তায় বলেন ‘‘জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি শ্রদ্ধা, বছরে কেবল একদিন আয়োজন করে প্রদর্শন করার জিনিস নয়। তাঁদের মহান আত্মত্যাগ, অবদানকে সর্বক্ষণ অন্তরে ধারণ করা আমাদের কর্তব্য। এই মহান বিজয় দিবসে লাল-সবুজের অনুপ্রেরণায় হোক কোটি বাঙালির গর্বিত পথচলা।

১৬ ডিসেম্বর। মহান বিজয় দিবস। ৫১তম বিজয় দিবসে ত্রিশ লক্ষ শহীদ, সকল বীর মুক্তিযোদ্ধা, সম্ভ্রম হারানো সকল মা-বোনের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা। যাদের আত্মত্যাগে পেয়েছি আমরা বাংলাদেশ নামক মাতৃভূমি।’’১৬ ডিসেম্বর ৫১তম মহান বিজয় দিবস পালিত হবে। বীরের জাতি হিসেবে পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামে একটি স্বাধীন ভূখন্ডের অস্তিত্ব প্রতিষ্ঠার চিরস্মরণীয় দিন। মুক্তির জয়গানে মুখর জাতি শ্রদ্ধাবনত চিত্তে স্মরণ করে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান সেই অকুতোভয় বীরদের, যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছে এ বিজয়।

তিনি আরও বলেন,বাংলাদেশের তুলনাহীন এই বিজয় দিবস এমনি এমনি আসেনি। এই বিজয় রক্তে কেনা। ৯ মাস সশস্ত্র যুদ্ধ করে এই বিজয় আমরা ছিনিয়ে এনেছি। একাত্তরের ২৫ মার্চ কালো রাত থেকে জাতির ওপর শুরু হয়েছিল মৃত্যু, ধ্বংসযজ্ঞ আর আর্তনাদের নারকীয় বর্বরতা।

কিন্তু এই ঘোরতর অমানিশা ভেদ করে ৯ মাসের মাথায় ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর এ দেশের আকাশে উদিত হয় স্বাধীনতার চির ভাস্বর সূর্য। পত পত করে উড়তে থাকে স্বাধীনতার পতাকা। এই পতাকা বিজয়ের পতাকা। নতুন দেশের উদয়ের সূর্য। স্বাধীন সূর্যোদয়। এই স্বাধীন দেশের নামই বাংলাদেশ।
৯ মাস যুদ্ধ করে আমরা বিজয় ছিনিয়ে এনেছি, স্বাধীনতা লাভ করেছি। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ তাই আমাদের সবচেয়ে গৌরবময় ঘটনা। মুক্তিযুদ্ধ আমাদের হাজার বছরের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ঘটনা। এই মুক্তিযুদ্ধ আমাদের সবচেয়ে আত্মোৎসর্গের ঘটনাও। বিজয় ছিনিয়ে আনতে গিয়ে লাখো প্রাণ বিসর্জন দিতে হয়েছে। কত যে ত্যাগ, কত যে অশ্রু- তার কোনো হিসাব নেই। সাহস করে চোখের জলেই আমরা বীরগাথা রচনা করেছি। লাল-সবুজের পতাকা আমাদের সেই আত্মোৎসর্গের কথাই মনে করিয়ে দেয়। ত্যাগের পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধ আমাদের সবচেয়ে উজ্জ্বল, আনন্দের ঘটনাও। মায়ের অশ্রু, বীরের রক্ত স্রোত- এ মাটির, এ জাতির গৌরব। চিরদিনের সম্পদ। আমাদের রক্তার্জিত পতাকা তাই চিরদিন বাংলার আকাশে উড়বে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category