১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ| ২৬শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ| ১৮ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি| বিকাল ৫:৫৯| গ্রীষ্মকাল|

ঝালকাঠীতে সুগন্ধার ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে কিছু গ্রাম

মোঃ সোলায়মান হাওলাদার ষ্টাফ রিপোর্টা
  • Update Time : শনিবার, নভেম্বর ৬, ২০২১,
  • 81 Time View

নদী পাড়ের বাসিন্দাদের কাছে এক আতঙ্কের নাম ভাঙন। ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার কুলকাঠি ইউনিয়নের সরই গ্রামটির বিস্তীর্ণ এলাকা সাড়া বছরই নদীভাঙনের শিকার হয়।

এতে বসতভিটা হারিয়ে নিঃস্ব হচ্ছে শত শত পরিবার। অর্থবিত্তরা অন্যত্র জমি কিনে নিজ ভিটা ত্যাগ করছে আর নিম্মবিত্তরা সব হারিয়ে হচ্ছে নিঃস্ব। রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার, স্কুল-কলেজ, মসজিদ, মাদরাসাসহ সরই গ্রামের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নদীগর্ভে বিলীন হচ্ছে। প্রতি বছর বর্ষায় নদীভাঙন অব্যাহত থাকলেও শীতকালেও ভাঙছে নলছিটির সরই গ্রামের একটি অংশ। এ বছর তা ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছে। মানচিত্র থেকে প্রতিদিনই কমছে সরই গ্রামের সীমানা।

এ বছর জুন মাস থেকেই ঝালকাঠি জেলার সুগন্ধা বিষখালী এবং হলতা নদীর ভাঙন বিগত বছরের তুলনায় অনেকটা বেশি। সুগন্ধা নদীর প্রবেশমুখ বিষখালীর তীরে থাকা একটি সাইক্লোন সেল্টার চলতি বছরের ২৬ আগষ্ট নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

এ জেলার নদীর পাড়ের বাসিন্দারাও দিন দিন নদীভাঙনে নিঃস্ব হচ্ছে। স্থানীয়রা জানান, বরিশাল-খুলনা নৌ রুটের ঝালকাঠি অংশে এলপি গ্যাস বহনকারী জাহাজের ঢেউয়ের চাপে শাখা নদীগুলোও ভেঙে নিচ্ছে ঘরবাড়ি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ফসলের মাঠ।

বিশেষজ্ঞদের মতে, অপরিকল্পিতভাবে নদী খনন বা ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন এবং দ্রুতগতির নৌযানের ঢেউয়ের কারণে ক্ষতির শিকার হয় নদীর তীর।

কুলকাঠি ইউনিয়নের সরই গ্রামের ক্ষতিগ্রস্থ বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত কলেজ শিক্ষক আব্দুল জব্বার তালুকদার বলেন, প্রতিবছর সুগন্ধা নদীর দক্ষিন পাড় ভাঙতেছে। সরই এলাকার নদীর পাড় থেকে গত কয়েক বছরে প্রায় ৬০টি পরিবার স্থানান্তরিত হয়েছে।

একই এলাকার নুর মোহাম্মদ বলেন, সরই গ্রামের ভাঙ্গনকুলের অনেকে নিজেদের সবটুকু ভিটে মাটি হরিয়ে রাস্তার পাশে সরকারী জমিতে ঘর তুলে বসবাস করতেছে। আমার নিজের যতটুকু জমি আছে তা আগামী ১ থেকে ২ বছরের মধ্যে নদীগর্ভে চলে যাবে।

অবসরপ্রাপ্ত তহসীলদার হাজী আব্দুল হক তালুকদার বলেন, যে জায়গাটায় আমি অনেক বসতঘর দেখেছি সেখান থেকে এখন লঞ্চ চলচল করে। নদী এখন আমার বাড়ির নিকটে চলে আসছে। আমি হয়তো ভবিষ্যতে নিজ ভিটায় থাকতে পারবো না।

ভুক্তভূগী শহিদুল ইসলাম বলেন, আমার জন্মস্থানের ঘরটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ৫০ বছরেও এই স্থানটি ভাঙন রোধে কোনো সরকার উদ্দোগ নেয়নি। সরই গ্রামের ভাঙন এলাকাটি ভাঙন রোধে বর্তমান সরকার প্রধানের কাছে গ্রামবাসীর পক্ষে আমার আকুল আবেদন রইলো।

ভুক্তভূগী গৃহিনী মোসাম্মৎ নিপা বলেন, নদী এখন আমার ঘরের পাশে, নদীর পাড় ভাঙতেতো আছেই, সেই সাথে এলপি গ্যাস কোম্পানীর জাহাজ এতো দ্রুত গতিতে চালায়, ওদের তুফানে আমাদের ঘর কেঁপে ওঠে। তাতে ভাঙনের তীব্রতাও দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে।

নদীপাড়ের বাসিন্দা সুখী বেগম বলেন, যাদের জমি ভেঙে যাচ্ছে তারা ঐ জমির মাটি ইট ভাটায় বিক্রি করে দিচ্ছে। তাতে ভাঙন আরো বেড়েছে, এছাড়া গ্যাস কোম্পানীর জাহাজের তুফানে বাড়ির উঠানে পানি চলে আসে। ছোট বাচ্চা দড়ি দিয়ে বেধে রাখি। যাতে নদীতে পরে না যায়। রাতেও ঘুম আসেনা কখন যেনো নদীতে ভেসে যাই।

মোজাম্মেল মোল্লা বলেন, সরকার থেকে নদী ভাঙন বন্ধ না করা হলে ২ / ১ মাসের মধ্যে আমরা আর নিজ ভিটায় থাকতে পারবো না। কোথাও গিয়ে ঘর তোলার টাকাও আমার নেই।

চুন্নু তালুকদার বলেন, নদীর তীরে ব্লক দিয়ে ভাঙন ঠেকানো না হলে আমাদের অবস্থা খুবই শোচনীয় হয়ে যাবে। গ্যাস বহনকারী জাহাজের অতি গতির জন্য শীতকালেও সরই গ্রাম ভাঙতেছে।

কুলকাঠি ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড মেম্বার বেল্লাল হোসেন মোল্লা বলেন, ভাঙনকুলে থাকা আমার অনেক স্বজনরা তাদের বাপ-দাদার বাড়ির চিহ্নটুকু রাখতে পারেনি। আমরা ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে এবং আমাদের সংসদ সদস্যকে অবগত করেছি। কিন্তু হচ্ছে/হবে বলে আজ পর্যন্ত ভাঙন রোধে কোনো সুরাহা পাইনি।

নলছিটি উপজেলার কুলকাঠি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান বাচ্চু বলেন, স্কুল মাদ্রাসা, বাজার এবং অনেক বসতঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। তবে গ্যাস বহনকারী জাহাজ গুলোকে দায়ীকরে তিনি বলেন, জাহাজের গতি নিয়ন্ত্রন না থাকায় ভাঙনের তিব্রতা বেড়েছে। তবে সুগন্ধা নদীর সরই অঞ্চলটি ভাঙন রোধে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে পানি উন্নয়ন বোর্ডে একটি প্রকল্প প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে বলে তিনি দাবী করেছেন।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, ঝালকাঠি পানি উন্নয়ন বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী রাকিব হোসেন বলেন, নলছিটি উপজেলার কুলকাঠি ইউনিয়নের ভাঙন কবলীত সরই নামক স্থানটি আমরা ইতোমধ্যে পরিদর্শন করেছি। এবং পরিদর্শন পুর্বক ওখানে আমাদের প্রাথমিক জরিপ সম্পাদক করা হয়েছে। সম্পাদন শেষে একটি ডিজাইন ডাটা প্রেরন করবো। ডিজাইন ডাটা পেলে ওখানে ডিপিপি কার্যক্রম শুরু করা হবে। ডিপিপি কার্যক্রম অনুমোদন পেলে আমরা ওখানে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করতে পারবো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category